You are currently viewing হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট কেনো প্রয়োজন

হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট কেনো প্রয়োজন

প্রযুক্তির অগ্রগতির দরুন সমস্ত সেবা যখন মানুষের হাতের মুঠোয় তখন আপনার হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিকগুলো কেনো পিছিয়ে থাকবে। বাকি সব সেবার মতোই হাসপাতাল ও ক্লিনিকের ডিজিটালাইজেশন জরুরি। আপনি যদি আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিককে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে স্থান দিতে চান তাহলে আপনার হসপিটালের জন্য একটা ওয়েবসাইট মেনডাটোরি।

বর্তমানে বাংলাদেশের বেশির ভাগ হসপিটাল ও ক্লিনিকের কোনো ওয়েবসাইট নেই। আর এটাই হতে পারে আপনার জন্য সেরা সুযোগ। পুরো বাংলাদেশের হেলথকেয়ার সিস্টেম যখন পিছিয়ে তখন আপনি আপনার হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকের জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সবার থেকে বেশি লিড নিতে পারবেন।

যে কারনে হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট প্রয়োজন

একটি ওয়েবসাইট হতে পারে আপনার হেলথকেয়ার বিজনেসে সফলতার চাবিকাঠি। বর্তমানে সবাই যেমন কোনো ট্যুরিস্ট প্লেস ভিজিট করার আগে তার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করে ঠিক তেমনি শহরের কোথায় কোন হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিক টা ভালো, সেখানে কি কি সেবা পাওয়া যায়, ডক্টর কখন রোগী দেখতে আসে, অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুক করার সময়সূচি, হসপিটালের স্টাফদের কনট্যাক্ট নাম্বার, হেলথ টিপস ইত্যাদি জানার জন্য তারা গুগলে সার্চ করে। আর ঠিক এই সমস্ত কারনেই আপনার হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট জরুরি। আরও যে যে কারণে হসপিটাল ও ক্লিনিকের ওয়েবসাইট খুবই গুরুত্বপূর্ণ তা নিচে আলোচনা করা হলো।

 

ব্র‍্যান্ড সচেতনতা তৈরি করুনঃ

আপনার হসপিটাল সম্পর্কে জনগণের মাঝে বিশ্বস্ততা অর্জন করতে পারে একটি ওয়েবসাইট। এটি আপনার প্রতিষ্ঠানের ব্র‍্যান্ডিং হিসেবেও কাজ করবে। মানুষ সব সময় ফলো করে ব্র‍্যান্ড কে। তাই ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে আপনার হসপিটালের ব্র‍্যান্ডিং হয়ে গেলে সাধারণ মানুষজন আপনার হসপিটাল কে এক নামে চিনবে। এর ফলে সবার মনে সচেতনতা তৈরি হবে। তারা ওয়েবসাইট থেকে হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকের লোকেশন, ম্যাপ, ফিচারস, সার্ভিসসহ অন্যান্য সবকিছুই দেখতে পারবে।

আর এই সমস্ত তথ্য দিয়ে তাদের মনে আস্থার যায়গা করে নেওয়া ব্যবসায় সফল হওয়ার অন্যতম কারণ। একবার আস্থার যায়গা তৈরি হয়ে গেলে আপনার কাস্টমারের সাথে কানেক্টিভিটি বাড়বে এবং তারা আপনার হসপিটাল অন্যদের কে রিকমেন্ড করবে।

 

অনলাইন ভিজিবিলিটি বাড়ানঃ

ওয়েবসাইট হলো আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিকের জন্য এক ধরনের ডিজিটাল অফিস যা সমস্ত অনলাইন ভিজিটরদের কে সেবা দিয়ে থাকে। এমন অনেক ব্যস্ত মানুষ আছে যাদের হাতে সময় নেই কাউকে কোনো হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিক সম্পর্কে জিজ্ঞেস করার। তাই তারা নরমালি যেকোন হসপিটালের ইনফোরমেশনও গুগল করে। তাই তাদের করা সার্চে আপনার হসপিটালের অনলাইন ভিজিবিলিটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

 

২৪ ঘন্টাই সেবা নিশ্চিত করুনঃ

আপনার হসপিটালের মূল লক্ষ্য যদি হয়ে থাকে ২৪ ঘন্টাই জনগণের সেবা নিশ্চিত করা তাহলে আজই আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করে নেওয়া উচিৎ। কেননা একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমেই আপনি জনগণকে ২৪ ঘন্টা সেবার আওতায় আনতে সক্ষম হবেন। কারো যদি ইমার্জেন্সি কোনো তথ্য প্রয়োজন হয় তাহলে সে সহজেই গুগল করে সেই তথ্য পেয়ে যাবে। আর এর জন্য আপনার ২৪/৭ কোনো লোককে নিয়োগ দিতে হবে না একটা ওয়েবসাইট-ই যথেষ্ট।

 

সার্ভিসগুলো সাজিয়ে রাখুনঃ

ওয়েবসাইট একটা পারফেক্ট প্ল্যাটফর্ম যা আপনার ক্লিনিকের হেলথ ট্রিটমেন্ট, প্যাকেজ সম্পর্কে কাস্টমারদের একটা স্বচ্ছ ধারণা দিবে। আপনার হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকে যে সমস্ত সেবা রয়েছে সেগুলো ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে সহজেই সাজিয়ে রাখতে পারেন শোকেজ আকারে। এতে সবার সার্ভিসের প্রাইজ জানতে বেগ পেতে হবে না। বিশেষ দিবসে হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিকের যেকোনো সার্ভিসে যদি বিশেষ ছাড় থেকে থাকে তাহলে সেটাও আপনি শোকেজে শো করতে পারবেন অনায়াসে।

 

সার্ভিস সবার কাছে পৌঁছে দিনঃ

হসপিটাল কিংবা ক্লিনিক ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে আপনি আপনার সেবা নিয়ে বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলার সবার কাছেই পৌঁছাতে পারবেন। যেটা একমাত্র ওয়েবসাইট এর মাধ্যমেই সম্ভব।

 

অ্যাপয়েন্টমেন্ট প্রসেস কে সহজ করুনঃ

খুব বেশি দিন আগের কথা না, যখন মানুষ ডক্টরের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতো। কিন্তু এই ভোগান্তি থেকে রেহাই দিতে পারে একমাত্র হসপিটাল ওয়েবসাইটের চ্যাটবোর্ড ফিচারটি। এটির মাধ্যমে আপনি প্রয়োজন অনুযায়ী অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুক করতে পারেন, ক্যানসেল করতে পারেন কিংবা যেকোনো ধরনের প্রশ্ন করতে পারেন। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার প্রশ্নের উত্তর দিবে।

 

এডভারটাইজিং এর মাধ্যমে টার্গেটেড কাস্টমার খুঁজুনঃ

সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি ব্লগ লেখার মাধ্যমে আপনি আপনার টার্গেটেড কাস্টমারদের কাছে আগের থেকে বেশি রিচ করতে পারবেন। এতে আগের থেকে আপনার হসপিটাল এর সার্ভিস জনগণের কাছে ভালোভাবে পৌঁছে দিতে পারবেন এবং বেশি প্রোফিট গেইন করতে সক্ষম হবেন। এছাড়াও গুগল এড এর মাধ্যমে আপনি আপনার কাংখিত কাস্টমারকে খুঁজে পেতে পারেন।

 

রোগীদের সাথে ইংগেজমেন্ট বাড়ানঃ

আপনার হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকের ওয়েবসাইট থাকলে সেখানে জনগণ আপনার হসপিটালের সার্ভিস রিলেটেড রিভিউ দিতে পারবে। এতে করে পুরাতন কাস্টমারদের সাথে আপনার ইংগেজমেন্ট বাড়বে এবং নতুন কাস্টমার ভালো রিভিউ দেখে আপনার হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকের সার্ভিস নিতে উৎসাহিত হবে। মজার বেপার হলো নতুন কেউ যখন আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করতে আসবে তখন পুরাতন কাস্টমারদের রিভিউ দেখে আপনার হসপিটালের প্রতি তাদের বিশ্বস্ততা অনেক গুন বেড়ে যাবে। তাই চট করে আপনার হসপিটালের জন্য একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে ফেলুন!

 

নলেজ এক্সচেঞ্জ প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলুনঃ

একটি ওয়েবসাইট হতে পারে নলেজ এক্সচেঞ্জ করার একটা বড় প্ল্যাটফর্ম। মনে প্রশ্ন জাগছে সেটা কিভাবে সম্ভব? প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষ হেলথ রিলেটেড ইনফরমেশন জানার জন্য গুগলে সার্চ করে থাকে। আর আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইট এ ব্লগ আকারে হেলথ টিপস শেয়ার করেন তাহলে আপনি অনেক অর্গানিক ট্রাফিক পেয়ে যাবেন হেলথ টিপস শেয়ার করার মাধ্যমে। তারা আপনার ওয়েবসাইট এ এসে ব্লগ পড়ার মাধ্যমে কিংবা ই-মেইল সাবস্ক্রিপশনের মাধ্যমে আপনার হসপিটালের সাথে ইংগেজ হবে। চলুন এই সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

 

ব্লগ আর্টিকেলঃ

আপনি আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিকের ইনফরমেশনগুলো কিংবা হেলথ টিপসগুলো ব্লগ আকারে শেয়ার করতে পারেন।

 

ই-মেইল সাবস্ক্রিপশনঃ

আপনার হসপিটাল কিংবা ক্লিনিকের গুরুত্বপূর্ণ আপডেট, কন্টেন্টগুলো যারা ই-মেইল সাবস্ক্রাইবার তাদের সাথে খুব সহজেই শেয়ার করতে পারবেন।

 

কনট্যাক্ট ফর্মঃ

আপনার হসপিটাল ওয়েবসাইট এ কনট্যাক্ট নাম্বার শেয়ার করা থাকলে যদি কোনো কাস্টমারের কোনো স্পেসিফিক ডাউট কিংবা কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে তা ক্লিয়ার হয়ে যাবে।

 

FAQ:

প্রতিটি কাস্টমারের-ই  কিছু কমন প্রশ্ন থাকে। আপনার ওয়েবসাইটে সেই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর FAQ আকারে সাজিয়ে দিলে কাস্টমারদের প্রশ্নের উত্তর পেতে বেগ পাওয়া লাগবে না।

এছাড়াও হসপিটাল ওয়েবসাইট এর আরও অনেক ফিচারস আছে যার মাধ্যমে আপনি কাস্টমারদের সাথে ইংগেজমেন্ট বাড়াতে পারবেন, সার্ভিস রিলেটেড কন্টেন্ট ও হেলথ টিপস শেয়ার করতে পারবেন।

পরিশেষেঃ আশা করি উপরের ব্লগ টি পড়ে আপনি বুঝতে পেরেছেন কেনো আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট জরুরি। বর্তমান যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিকের ডিজিটালাইজেশন খুবই জরুরি। তাই দেরি না করে আজই আপনার হসপিটাল ও ক্লিনিকের জন্য ওয়েবসাইট বানিয়ে নিন আমাদের থেকে। বাজেটের মধ্যে প্রফেশনাল ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট বানানোর জন্য এখনই যোগাযোগ করতে পারেন টপার আইটির এর সাথে নিচে ডানপাশে লাইভ চ্যাট আইকনে ক্লিক করে। আমরা দিয়ে থাকি বাজেট ফ্রেন্ডলি সেরা সার্ভিস। তাই আজই আমাদের থেকে আপনার হসপিটালের জন্য প্রিমিয়াম কোয়ালিটির ওয়েবসাইট বানিয়ে নিন এবং আমাদের থেকে ফুল টাইম সাপোর্ট নিন।